একটি ব্লগিং শুরু করার জন্য সবচেয়ে জরুরি যে বিষয়টা সেটি হল লাভজনক ব্লগিং নিশ আইডিয়া নেওয়া।


আমি এখন আপনাদরকে এমন কিছু ফ্রেশ ব্লগিং নিশ সম্পর্কে বলব যেগুলো দ্বারা আপনারা কাজ করলে খুব দ্রুত উন্নতি করতে পারবেন।


আর এই নিশ গুলো নিয়ে কাজ করার আরো একটা প্রধান উদ্দেশ্য হল রেঙ্ক করা। এই নিশ গুলোতে সবচেয়ে তারাতারি রেঙ্ক হবে।এগুলো নিজে নিজেই রেঙ্ক করে যাবে কারন এই নিজগুলো কম লোক কাজ করে তাই।আর এইগুলোতে গুগল এডস্যান্স পাওয়া খুব সহজ। 


আর এডস্যান্স থেকে আর্নিং ছাড়াও আপনি সাইট আর্নিং এর জন্য এপিলিয়েট মার্কেটিং করেও আর্নিং করতে পারবেন।কিছু নিশতো আবার এইরকম যে এইগুরোতে কোন প্রকারের পোস্ট করার দরকার নেই শুধুমাত্র একবার সাইট তৈরি করা তার পর আর কিছু করার দরকার নেই।


সবকিছু তৈরি হয়ে যাবে।তো আপনি যদি এইরকম কিছু করার জন্য এই আর্টিকেলটি অনেক হেল্প হবে।আমরা অনেকে ভুল করি না বুঝে একটা নিশ নিয়ে কাজ করি যেগুলো দ্বারা রেঙ্ক অনেক কষ্টকর হয়ে উঠে। ফলস্বরূপ আর্নিং না হওয়া।


 আর কারো কারো কারো সাইটে ট্রাপিকতো আসে কিন্তু আর্নিং হয় না,আবার কারো কারো ট্রাপিকই আসে না।তো আরেকটা কথা বলি ২০২০ সালে এসে আপনাকে যকটা বেশি নিশের ভিতর ডুকে কাজ করবেন ততটাই ভালো হবে।

চলুন শুরু করি : ১১ টি  লাভজনক ব্লগিং নিশ আইডিয়া ২০২১


১. কুপন কোড বেসড ব্লগ তৈরি করা


এই কুপন কোডের সাইট তৈরি করা তেমন একটা ব্যাপারনা,কিন্তু বিপরীত দিকে অনেক বেশি লাভজনক। অনলাইনে অনেক কোম্পানি আছে যারা কুপন কোড দে যেগুলো দ্বারা কোন কিছুর মূল্য কিছু কম রাখা যায়।


অনলাইনে এইগুলোর সার্চ অনেক বেশি পরিমাণ হয় কিন্তু রেসাল্ট খুব কম থাকে।আর এইগুলো খুব সহজে এবং দ্রুত রেঙ্ক হতে শুরু করবে।এতে করে আপনি আপনার সাইটিকে একটি লাভজনক সাইট হিসেবে তৈরি করতে পারবেন।মনে রাখবেন আপনি যদি একটি বড় কোম্পানির কুপন কোড শেয়ার করেন তবে সেটি আরো ভালো হবে।



২. ইউটিউব থাম্বনেইল ডাউনলোড টুল ওয়েবসাইট


এই ধরনের সাইট তৈরি করা খুব সোজা ব্যাপার।এটার সবচেয়ে ভালো যে ব্যাপারটা সেটা হল আপনাকে শুধু একবার সাইট বানাবেন বাস আপনার কাজ শেষ আপনার ভিজিটর আসতেই থাকবে।


তো আপনি কি করে এই রকম টুল ওয়েবসাইট বানাবেন,এর জন্য আমি আলাদা করে আরো একটি আর্টিকেল তৈরি করেছি যেটির সাহায্যে আপনি খুব সুন্দর একটা সাইট বানাতে পারবেন।এই সাইট রেঙ্ক করা খুব সোজা। 


এটার সিপিসি খুব ভালো দেয় যার ফলে এইসব সািটে কম ভিজিটর দিয়েও ভালো টাকা পাওয়া যায়।



৩. ক্যলকুটার ওয়েবসাইট


ক্যকলকুলেটর ওয়েবসাইট হয়ত আপনি ব্যবহার করেছেনও।এখানে আলাদা আলাদা বিভাগ আছে।এই ক্যারকুটার ওয়েবসাইটের মধ্যে বয়স নির্ধারন ক্যালকুটার আছে,যোগ-বিয়োগের ক্যালকুটার আছে এছাড়াও আরো অনেক প্রকার আলাদা আলাদা নিশ আছে। 


যেগুলো দ্বারা কাজ করলে আপনার সাইট রেঙ্ক করে যাবে এবং কিছু সময় পর খুব ভারো পরিমান আর্নিং আসবে।তাই এটি ট্রাই করে দেখবেন।



৪. পিসি গেইম ডাওনলোড ওয়েবসাইট


পিসি গেইম ডাওনলোড ওয়েবসাইটের সবচেয়ে ভালো ব্যাপারটা থাকে সেটি হল অনেক বেশি পরিমাণ ট্রাপিক।আপনার সািটে প্রচুর পরিমান ট্রাপিক আসবে এই ধরনের সাইটে গুগল খুব তারাতারি এডস্যান্স এপ্রুপভাল দিয়ে দেয়।


আপনি যদি পেইক কনটেন্ট না দিয়ে অর্জিনাল ভালো কোন কনটেন্ট দাও তবে সময়ের সাথে অনেক অনেক ভালো পরিমান টাকা আয় করা সম্ভব। তাই এটাও ট্রাই করে দেখা উচিত।

৫. বিখ্যাত লেখকের কবিতার ওয়েবসাইট


এইটায় রেঙ্ক করা খুব সোজা।এই ধরনের সাইট মানুষ ভিজিট করার অনেক কারন থাকে।হয়ত আজ কোন বিখ্যাত কেউ মারা গেল, সবজায়গায় শুধু তাকে নিয়ে কথা হচ্ছে আর এই সুযোগটা আপনাকে নিতে হবে।


আর এই সময়ে অনেক লোক গুগলে সার্চ করে। আর এই সাইটে অনেক বেশি পরিমাণ সিপিসি পাওয়া ফলে ভালো আর্নিং করা যাবে।আগেই বলেছি রেঙ্ক করা খুব সোজা।


৬.ওয়ার্ডসএ্যাপ/টেলিগ্রাম গ্রুপ  জয়েন ওয়েবসাইট


এই ধরনের সাইট হয়ত আপনিও কখনও না কখনও সার্চ করেছেন।অনেকটা এইরকম 'বেস্ট স্টাডি ওয়ার্ডসএ্যাপ গ্রুপ'। আর এখানে আপনারা শুধু লিঙ্ক দিতে হবে।আর কোন কাজ নেই। তাছাড়াও এটা দ্বারা চাইলে আপনি আপনার কোন গ্রুপ কেউ প্রমুট করতে পারে যাতে আপনি যেকোন সময় যেকোন কিছু করতে পারবেন।


আবার অন্যকে প্রমোট করে দিয়েো টাকা কামিয়ে নিতে পারেন।বুঝতেই পারছেন এই ধরনের সাইট তৈরি করা কতটা লাভজনক।



৭. পার্সোনার অনলাইন স্টোর ওয়েবসাইট


এই ধরনের সাইট তখন তৈরি করবেন যখন আপনার কাছে বিক্রি করার জন্য প্রোডাক্ট থাকবে আপনি একটা অনলাইন স্টোর তৈরি নিতে পারেন। 


এতে করে এখানে যা টাকা বিক্রি হবে সবই আপনার হবে।আর সাথে গুগল এডস্যান্স করেও টাকা কামাতে পারবেন।আর এই ধরনের সাইট রেঙ্ক করাও খুব সোজা।



৮. লোকাল গাইড ওয়েবসাইট


লোকাল গাইড বলতে আপনার জেলা সম্পর্কে যত গুরুত্বপূর্ন জায়গা বা যত তথ্য আছে সব দিতে পারেন। আর এই লোকার গাইড ওয়েবসাইট খুব তারাতারি রেঙ্ক করবে।


আর এর সাহায্যে গুগল এডস্যান্স ব্যবহার করে খুব ভালো পরিমান টাকা কামিয়ে নিতে পারেন।আপনার গাইড যতটা লোকাল থাকবে ততটা দ্রুত এবং উপরে রেঙ্ক হবে।



৯. অনলাইনে টাকা আয়ের ওয়েবসাইট


যখন থেকে করোনা এসেছে রোকেদের মাথায় একটা কথা সবসময় আসে কি করে অনলাইন টাকা আয় করা যায়।আপনার কাছে যদি এমন কোন আইডিয়া থাকে যে কি করে অনলাইন টাকা আয় করা যায় তবে সেই আইডিয়া গুলোকে একটি ব্লগের মতো করে তৈরি করে দিতে পারলে অনেক বেশি ট্রাপিক আসবেই।তাই এটি আপনার একবার হলেও চেষ্টা করে দেখা উচিত।



১০. ওয়েবসাইট রিভিউ ওয়েবসাইট


বর্তমানে প্রায় সব কিছুরই রিভিউ পাওয়া যায়। সেখানে খুব কম সাইট আছে যারা অন্য বড় বড় সাইটের রিভিউ দেয়। আর রিভিউ তে আপনি দেখাতে পারেন ঐ সাইটা কেমন ভালো না খারাপ, এটা দিয়ে এটা-ওটা করা যায়। 


তাই এই ধরনের সাইট রেঙ্ক করা খুব সহজ এবং ভালো পরিমান আর্নিং। আর এই ধরনের সাইটে কষ্ট কম থাকে।



১১. প্রোডাক্টের পার্থ্যক ওয়েবসাইট


প্রোডাক্ট পার্থ্যক ওয়েবসাইট হচ্ছে কোন দুই বা তার অধিক আলাদা আলাদা কোম্পানির একই প্রোডাক্টের পার্থক্য। উদাহরণ স্বরূপ টিভির পার্থক্য দিতেছেন। আপনি এখানে এলজি অথবা স্যামসাং এর একই টিভির মধ্যে পার্থ্যক করতে পারেন কোনটি সেরা। 


চাইলে আরো কয়েকটা কোম্পানির একই প্রোডাক্টও সংযুক্ত করতে পারেন।এই ধরনের সাইটে প্রচুর ট্রাপিক আসবে।



উপরের প্রত্যেকটা নিশে খুব ভালো পরিমান আর্নিং করে নিতে পারবেন গুগল এডস্যান্স এবং অন্যান্য মাধ্যমে।সবারই উচিত যতটা সম্ভব ট্রপিকের ভিতর থাকা।
আর্টিকেল টি কেমন লাগল কমেন্ট করে জানাবেন।

"হ্যাপি ব্লগিং"" ব্লগার-বিডি"





3 মন্তব্য

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

অপেক্ষাকৃত নতুন পুরনো