Check Now

ব্লগারদের দরকারি ৫ টি ফ্রি অনলাইন টুল-প্রয়োজনীয় অনলাইন ব্লগিং টুল


 ব্লগিং - বর্তমানে অনেক জনপ্রিয় একটা বিষয় হয়ে উঠেছে।সবাই চায় ব্লগিং করে কি করে সফল হওয়া যায়।আজকের আপনাদের সাথে ব্লগারদের দরকারি ৫ টি অনলাইন টুল শেয়ার করব।


ব্লগিং এ সফল হতে হলে আপনার অনেক বিষয় খেয়াল রাখতে হয়।শুধু আর্টিকেল লিখলেন আর পাবলিশ করে দিলেন, বর্তমান সময়ে এর কোন মূল্য নেই।আপনাকে ব্লগিং করতে হলে অনেক কিছু জানতে হয়।


বেশিরভাগ বিগেনার অনেক অনেক ভালো ভালো কনটেন্ট লেখার পরও ব্লগিং জার্নিটা শুরু করতে পারে না।আসলে তারা ব্লগিং সম্পর্কিত প্রকৃত জ্ঞান না থাকার কারনে এটা হয়।


• আপনি যদি নতুন ব্লগার হয়ে থাকেন bloggerbd.info তে বিগেনারদের একটি পেজ আছে দেখতে পারেন।


ব্লগিং শুরুর সময় যদি ব্লগিং সম্পর্কে আইডিয়া করে নিতে পারেন তাহলে আপনার ব্লগিং জার্নি অনেক সহজ হয়ে উঠবে। শুধু ব্লগিং করলেই হবে না তার পাশাপাশি কিছু ট্রিকস ও খাটাতে হয়।


• ৭ টি ব্লগিং সিক্রেট


বর্তমানে ব্লগিং সফল হওয়ার পিছনের কারন হয়ে থাকে বিভিন্ন অনলাইন টুল ব্যবহার করা।কি নেই এই টুলগুলোতে।এসইও, কিওয়ার্ড রিসার্চ,আর্টিকেল জেনেরেটর সহ ইত্যাদি।


কিন্তু সকলে তা ব্যবহার করতে পারে না।সবগুলো অনলাইন টুলই অনেক চড়া মূল্যে কিনতে হয়।আর এই সমস্যা থেকে দূর করার জন্য সকল বিগেনার ফ্রি অনলাইন টুল খুঁজে। 


এখন আপনাদের কাছে ব্লগারদের ৫ টি দরকারি অনলাইন টুল শেয়ার করব।যেগুলো ব্যবহার করে আপনি আপনার ব্লগিং ব্যবহার করে খুব দ্রুত উন্নতি করতে পারেন।


চলুন যেনে নিই ব্লগারদের ৫ টি দরকারি অনলাইন টুল কি কি



১. Canva





এটি বর্তমানে ব্লগারদের মাঝে খুব জনপ্রিয়। এটি দ্বারা আপনি আপনার ব্লগকে আরও সুন্দর ও সহজ করে তুলতে পারেন।তাই এটি সকল ব্লগারদের পছন্দের শীর্ষে থাকে।


এটি আপনাকে ফ্রি ভার্সন ব্যবহার করতে হবে।আর আপনি ফ্রি ভার্সন ব্যবহার করেই সকল কাজ করতে পারবেন।যখন আপনি ব্লগিং করে টাকা আয় করতে শুরু করবে তখন প্রিমিয়াম ভার্সন নেওয়ার জন্য বলতে পারাই যায়।


একটি ওয়েবসাইটের মেইন জিনিস হল আর্টিকেল।আর আর্টিকেল এর মূল সৌন্দর্য হল তার ছবি।আর এখানে আপনার মনের ইচ্ছেমতো ছবি তৈরি করে দিতে পারেন।


Canva থেকে যে কাজ গুলে করতে পারবেন।


Instagram post, Instagram story, Animated social media, Logo, Facebook story, Poster, Invitation, Video, Social media, Photo college, Mobaile first presentation, presentation, Business card, Brochure, Twitter post, Info-graphic, Pinterest pin, YouTube channel art, YouTube thumbnail, Cd cover, Recipe card, Facebook event cover, Facebook cover, Email heder, Book cover, এছাড়াও Blog banner, Blog post। 


বর্তমানে আমি কানবা প্রো ব্যবহার করি।আসলে এটি বিগেনারদের অনেক সাহায্য করে।


তাই ব্লগারদের ফ্রি অনলাইন টুলগুলোর মধ্যে এটি অন্যতম। আর বর্তমানে সত্তর শতাংশ ব্লগার এটি ব্যবহার করে থাকেন।



২. Ubersuggest (Neil Patel)



যারা নতুন এবং আর্টিকেল এসইও করতে পারছেন না তাদের জন্য এটি অন্যতম।এটিও অনেক ব্লগারদের দরকারি এবং জনপ্রিয় অনলাইন টুল গুলোর মধ্যে অন্যতম।


এটি বিখ্যাত এসইও স্পেশালিষ্ট নেইল পেটেল দ্বারা তৈরি একটা টুল।আর নেইলের এই টুল তৈরি করার প্রধান কারন হল সকল প্রয়োজনিয় টুলই যখন চড়া মূল্য দিয়ে তাদেন সাবসক্রাইভ করাচ্ছে।


এটি দ্বারা সম্পূর্ণ ফ্রিতে কিওয়ার্ড রিসার্চ, ব্যকলিঙ্ক তৈরি, এরর ফিক্স, প্রতিদ্বন্ধি খুজে বের করা সবকিছুই করা যায়।তবে লিমিট আছে। 


আপনি যদি Ubersuggest ফুল ব্যবহার করতে চাইলে আপনাকে সাবসক্রাই করতে হবে।তবে চিন্তার কারন নেই কারন এই টুলে আপনাকে বেশি টাকা খরছ করতে হবে না।


আবার সাবসক্রিভশন ছাড়াও খুব সহজে এর সমস্ত টুল ব্যবহার করতে পারবেন।চলুন জেনে নেওয়া যাক Ubersuggest দিয়ে কি কি করা যায়।


এটির রয়েছে শক্তিশালি Dashboard । আর এখানে চাইলে আপনি আপনার সাইটের হিসেবে কিওয়ার্ড ব্যবহার করে এসইও করাতে পারবেন সাথে আপনার সাইটের কোথায় কোন সমস্যা হচ্ছে সেটি জেনে নিতে এবং কি করে ফিক্স করবেন সব পাবেন।


এছাড়াও রয়েছে Keyword Research যেটি দ্বারা খুব সহজে সঠিক কিওয়ার্ড খুজে পেতে পারেন।এখানে আপনাকে শীর্ষ দশে পৌঁছাতে কোন কিওয়ার্ড কতটি ব্যাকলিঙ্ক তৈরি করতে হবে কত সিপিসি পাবেন, সার্চ ভলিউম কেমন সব পেয়ে যাবেন।


এছাড়াও রয়েছে Content Ideas, এখানে আপনি আপনার মনের মতো কোন শব্দ যেটা নিয়ে আপনি কাজ করতে চান সেটি টাইপ করে দিলেই দারুন দারুন সব কনটেন্ট আইডিয়া পেয়ে যাবেন। 


এটির আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ মজার বিষয় হল Site Audit। 


• Site Audit কি?


খুব সহজে বুঝে যাবেন আপনার প্রতিদ্বন্ধি কে এবং আপনাকে তার আগে যেতে হলে কি কি করতে হবে।


সবচেয়ে আকর্ষনীয় যে ব্যাপারটা সেটন হল Backlinks। সকলেই চায় শক্তিশালী ব্যাকলিঙ্ক তৈরি করতে। কিন্তু কোথা থেকে কি করবেন।

যাস্ট আপনার কোন বিষয় ব্যাকলিঙ্ক চাচ্ছেন সেটি দিয়ে দিলেই ভালো ভালো সাইট পেয়ে যাবেন ব্যাকলিঙ্ক তৈরির জন্য।



৩. getmetrix.com




এটা অনেক প্রপেশনাল একটা টুল। এই টুল দ্বারা আসলে সাইটের স্পিড নির্নয় করা যায়। আর আমরা সবাই জানি সাইট স্পিড প্রয়োজন হয় এসইওর জন্য এছাড়াও সাইট অপটিমাইজেশন এর ক্ষেত্রে । 


এই টুলটি একদম ফ্রি।আর এখানে অনেকট ভালো ভালো পিচার রয়েছে। এটি সম্ভবত সবচেয়ে জনপ্রিয় স্পিড নির্নয়ের টুলা।এটি অনেক কার্যকরি একটি সাইট হবে যদি আপনি এটি ব্যবহার করতে চান।


আমরা অনেকসময় দেখি আমাদের বা অন্য কারো সাইট যখন খুলতে যাই তখন লোডিং হতেই থাকে। এতে করে ভিজিটর ঐ বাদ দিয়ে অন্য আরেকটি সাইটে চলে যায়।এতে আপনার বাউন্স রেটও কমে যায়।


• বাউন্স রেট কি?


শুধুমাত্র সাইট স্পিড নির্নয়ই নয়।যদি আপনার সাইটে স্পিড কম থাকে সেটা কিভাবে পিক্স করতে হয় সেটাও বলে দেওয়া হয় যেটি খুবই স্মার্ট দেখায়।তাই আপনার সাইট যদি স্লো হয় এটি টুলটি আপনার জন্যই।


সাধারনত সাইট স্পিড ৯০% এর উপর রাখতে হয়।অনেকক্ষেত্রে সাইট ৩০/৪০% এ চলে যায়।সেখান থেকে কি করে সাইটকে নব্বই শতাংশে নিয়ে আসতে পারেন সেটি পেয়েই যাবেন।


তার সাথে সাইটটিতে আরও অনেকগুলো লোভনীয় পিচার রয়েছে।আপনি চাইলে কোন নির্দিষ্ট দেশের জন্য স্পিড চেক করতে পারেন। আবার চাইলে আপনার ৩ জি /৪ জি মোবাইলের জন্যও আলাদা আলাদা নির্নয় করা যায়।


আবার আপনার সিম ৩জি/৪জি এর জন্যও আলাদা আলাদা নির্নয় করা যায়। আবার আপনার সাইটে এ্যাড লাগিয়ে রাখলে কিরকম স্পিড হবে আবার না লাগালে কি রকম হবে সবই পেয়ে যাবেন।


আপনার ব্লগিং এ সহযোগিতার জন্য সবচেয়ে কার্যকরি ফ্রি অনলাইন টুল হতে পারে যদি আপনি এটা ব্যবহার করেন।




৪. Google Keyword planner ( কিওয়ার্ড রিসার্চ ) 




পৃথিবীর সবচেয়ে জনপ্রিয় কিওয়ার্ড রিসার্চ টুল গুগল কিওয়ার্ড রিসার্চ প্লেনার।আর সবচেয়ে মজার বিষয় হল এটা সম্পূর্ণ ফ্রি। কিওয়ার্ড রিসার্চ করার জন্য যতগুলো সাইট আছে সেখানে অনেক বেশি পরিমাণ একটা টাকা দিয়ে সাবস্ক্রাইবশন করতে হত।


আপনি যখন একজন বিগেনার আপনার দ্বারা এগুলো প্রায় অসম্ভব একটা ব্যাপার।গুগল কিওয়ার্ড রিসার্চ প্লেনার চালাতে হলে প্রথমে একটি গুগল এ্যাডওয়ার্ড একাউন্ট তৈরি করতে হয়।আপনি খুব সহজে কোন প্রকারের সমস্যা ছাড়াই এটি করে পেলতে পারেন।


গুগল কিওয়ার্ড প্লেনারের মেইন পেজে ঢুকতে হলে আপনাকে গুগলের কাছে টাকা দিয়ে একটি এ্যাড দিতে হয়।


কি করে এ্যাড দেওয়া ছাড়া ফ্রি গুগল কিওয়ার্ড প্লেনারের মেইন পেজে পৌছাবো? 


প্রথমে আপনি আনার ব্রাউজারে যান।এখানে ক্লিক করে এই পেজে এসে মেইল দিয়ে রেজিষ্ট্রেশন করে ফেলুন বা আগে আইডি থাকলে লগ ইন করে ফেলুন।আপনার এ্যাড একাউন্ট না থেকে থাকলে এখানে আপনাকে একটা এ্যাড একাউন্ট থুলতে হবে।


কারন গুগল কিওয়ার্ড প্লেনারের গুগল এ্যাডেরই একটি সাইট। এই কারনে এ্যাডে একাউন্ট লাগবে।


এরপর এখানে এসে আপনাকে একটু সতর্কতার সাথে নিচে Switch to experts mode এ ক্রিল করে দিন। এর পরের ধাপে এসে আবার কোন কিছুতে না ক্লিক করে Create an account without a campaign এ ক্রিল করে দিন।


তারপর যা আছে সেটা রেখে দিয়ে সাবমিট বাটনে ক্লিক করে দিন।এরপর explore your account এ ক্লিক করে দিন।বাস আপনার সমস্ত কাজ শেষ। এবার উপরের দিকে গিয়ারের মত একটি আইকন আছে সেটিতে ক্লিক করে দিতে হবে।এখান থেকে keyword planner এ ক্লিক করে দিলেই হয়ে যাবে।




এখান থেকে আপনি খুব এ্যাডভান্স লেভেলর একটা কিওায়ার্ড রিসার্চ টুল পাওয়া যায় যেটি ব্যবহার করে আপনি আপনার আর্টিকেল দ্রুত গ্রো হবে।ব্লগারদের দরকারি ৫ টি ফ্রি অনলাইন টুলের মধ্যো এটি অন্যতম টুল।


কারন অনলাইনে বাকি যেসব কিওয়ার্ড রিসার্চ টুল পাওয়া যায় সেগুলোতে এতটা প্রিমিয়াম পিচার পাওয়া যায় না।একারনেই গুগল কিওয়ার্ড প্লেনার এত জনপ্রিয়।আপনি চাইলে ইউটিউব বা ব্লগ দুটোরই কাজে লাগাতে পারেন এই টুলটি দ্বারা। 



• ৭ টি ব্লগিং সিক্রেট



৫. tinyjpg.com




যদি প্রশ্ন করা হয় সেরা ইমেজ কম্প্রেসর কোনটি? তাহলে সবার প্রথমেই টিনিজেপিজি নামটি চলে আসবেই।এটি আসলে ছবিকে কম্প্রেস করার কাজে লাগে।


আমাদের অনেকেরই সাইট স্লো বা ডাউন হয়ে যায় যার অন্যকম প্রধান করন হল ইমেজ অপটিমাইজেশন না করা।আর ইমেজ অপটিমাইজেশনের একটি ধাপ হল ইমেজ কম্প্রেসর।



• কিভাবে ইমেজ অপটিমাইজেশন করব?



আপনি ইমেজ কম্প্রেজ করার মাধ্যমে আপনার সাইটের ভারি ভারি ছবিগুলোকে ছোট করে পেলতে পারেন। এতে করে আপনার সাইট রেঙ্ক করাতে এবং বেল্যু বাড়াতে সাহায্য করবে।


কিভাবে টিনিজেপিজি টুল ব্যবহার করে ছবি কম্প্রেস করব?


এরজন্য প্রথমেই এর ওয়েবসাইটে যেতে হবে।এর পরের কাজ অনেক সোজা। আপনি যে ছবিটা কম্প্রেস করাতে চাচ্ছেন সেটি ড্রপ করে বা আপলোড করে দিবেন।


মনে রাখবেন আপনার ছবি যেন png অথবা jpg ফরমেটে হয়ে থাকে।আপনার ছবিগুলো যেন 5 MB এর বেশি না হয়ে থাকে। 


আপলোড হওয়ার পর অটো কম্প্রেস হয়ে যাবে।সাধারণত ২০% কম্প্রেস করে দিবে। আপনি চাইলে এটি বাড়াতে বা কমাতে পারেন।এর পর ডাউনলোড ক্লিক করে আগের ব্লগে আপলোড করে দিতে হয়।



এটিও প্রায় সকল ব্লগারেরই ব্যবহার করে থাকে।কারন প্রায়সই ছবিগুলো ভারি হয়ে যায় এবং ছবিগুলো কম্প্রেস করা লাগে।


আপনি যদি উপরের দেওয়া ব্লগারদের দরকারি ৫ টি ফ্রি অনলাইন টুল গুলো ঠিকমত ব্যবহার করতে পারেন তাহলে আপনি খুব দ্রুত আপনার সাইটের উন্নতি করতে পারেন।


আর্টিকেলটি কেমন লাগল কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না।"হ্যাপি ব্লগিং""ব্লগার-বিডি"


Post a Comment

অপেক্ষাকৃত নতুন পুরনো