Check Now

 বাংলায় ব্লগিং-এর ভবিষ্যত কি হতে পারে?





বাংলায় ব্লগিং-এর ভবিষ্যত এর কথা যদি আরো তিন বা চার বছর আগে লোকে বলত, তবে সেটি একটা ঠাট্টা-মশকারি বা হাসাহাসি হত যে।বাংলায় আবার কেউ ব্লগিং করে নাকি।












































































x

কিন্তু বর্তমানে এসে সব পাল্টে গেছে। বর্তমানে বাংলায় ব্লগিং করে অনেক ভালো পরিমান আয় করা সম্ভব যেটা কয়েকবছর আগেও খুব খারাপ অবস্থা ছিল।বাংলায় ব্লগিং বর্তমানে অনেক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে।


 

বাংলায় ব্লগিং এর সম্পূর্ন গাইড পেতে bloggerbd.info সাথে থাকুন। এখানে বাংলায় ব্লগিং এর শুরু থেকে কমপ্লিট এডভান্স লেভেলের গাইড করা হয়।আসলে বাংলায় কনটেন্টের সংখ্যা দিন দিন যে হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতেই বুঝা যায় যে বাংলায় ব্লগিং এর জনপ্রিয়তা।



এথানে বাংলা ব্লগিং এবং এর ভবিষ্যত সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ণ কথা শেয়ার করার চেষ্টা করব।বাংলায় ব্লগিং এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব।



১. বাংলায় ব্লগিং কি?
২. বাংলায় ব্লগিং করে কি পরিমান আয় করা যায়?
৩. বাংলায় ব্লগিং এ এডসেন্স পেতে কোন সমস্যা হয় কি?
৪. কেন বাংলায় ব্লগিং করব?
৫. কিভাবে বাংলায় ব্লগিং করব?
৬. বাংলায় ব্লগিং কারা করে? 
৭. বাংলায় ব্লগ করে আয়

৮.বাংলা আর্টিকেল লিখে টাকা আয়




অনেকে আছে যারা ব্লগিং করতে চায় কিন্তু না বুঝে ইংরেজির দিকে চলে যায় অথচ সে ইংরেজি অতোটা ভালো না।এটন কিন্তু মোটেও ঠিক না।বর্তমানে বাংলায় ব্লগিং করে অনেক কিছুই করা সম্ভব। 



বাংলায় ব্লগিং করে বর্তমানে অনেকেই ইংরেজি ব্লগিং এর চেয়ে বেশি আয় করছে।এতে করে অনেকে বুঝতে পেরে বাংলায় ব্লগিং এর দিকে অগ্রসর হয়।আপনিও যদি ব্লগিং এর সমস্ত নিয়ম কানুন মেনে বাংলায় ব্লগিং করেন আপনার সাফল্য বেশি দূরে নয়।




• ১১ টি ব্লগিং নিশ আইডিয়া যেগুলো দ্বারা কাজ করলে খুব দ্রুত সফল হবেন



এইটুকু পড়ে যারা বাংলায় ব্লগিং করবেন বলে ভাবছেন তাতের ব্লগিং জগতে স্বাগত। বাংলায় ব্লগিং-এর ভবিষ্যত কি হতে পারে এটা জানার জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নগুলোর উত্তর জেনে নেওয়ার চেষ্টা করি।



১. বাংলা ব্লগিং কি?



বাংলা ব্লগিং হল বাংলা ভাষায় আপনার সমস্ত কনটেন্ট তৈরি করাকে বুঝায়।

বর্তমানে পৃথিবীর অনেক ভাষায় ব্লগিং করা যায়।তার মধ্যে বাংলা ব্লগিং অন্যতম।যেসমস্ত ভাষা গুলোতে ব্লগিং করা যায় তার মধ্যে ভাষার দিক দিয়ে বাংলা ব্লগিং পৃথিবীর ৯ম তম ( আলেক্সা )। 



পৃথিবীর সবচেয়ে জনপ্রিয় ব্লগিং এর ভাষা ইংরেজি। বাংলাদেশেও এর চাহিদা কম নয়।

তবে বাংলা ব্লগিং বর্তমানে বেশি জনপ্রিয়।বাংলায় ব্লগিং বলতে সমস্তটাই বাংলা বুঝায়।

বাংলায় কনটেন্ট তৈরি করতে আমরা সবাই পারি।কারন এটা আমাদের মাতৃভাষা।


তাই আমাদের সকলেরই উচিত যার যে বিষয় অভিজ্ঞতা বেশি রয়েছে সে বিষয় নিয়ে বাংলায় ব্লগিং করা।কারন এখনো বাংলায় ভিজিটরদের চাহিদা পূরন করার মত কনটেন্ট তৈরি হয় নি।



২. বাংলায় ব্লগিং করে কি পরিমান আয় করা যায়?



বাংলায় ব্লগিং করে বর্তমানে খুব ভালো পরিমান টাকা আয় করা সম্ভব হয়।গুগল বর্তমানে বাংলা বা বাংলাদেশি যে এড গুলো রয়েছে সেগুলোর মূল্য বৃদ্ধি করতেছে।তাই আস্তে আস্তে আরো বেশি পরিমান আয় হবে।



যেহেতু বাংলায় কনটেন্টগুলো সেহেতু ইনকাম একটু কম হবে ইংরেজির তুলনায়।এর কারন হলো বাংলা যে কিওয়ার্ড গুলো রয়েছে সেগুলোর কোন CPC ( cost per click ) নেই।

তাহলে বলবেন কীভাবে আয় হয় যদি কোন সিপিসি না থাকে।


বাংলা কিওয়ার্ড গুলোতে সিপিসি খুব কম থাকে।আপনি যদি কোন বাংলা কিওয়ার্ড গুগলে সার্চ করেন অথবা এর সিপিসি চেক করেন দেখবেন শূন্য সিপিসি দেওয়া আছে।

কিন্তু আপনি যদি একটা ইংরেজি কিওয়ার্ড সার্চ করেন দেখবেন সেটার সিপিসি কেমন।


ভালো কোন কিওয়ার্ড হলে সেটা ১০$ ডলারও হতে পারে। সিপিসি হল কোন একটা এড এ কেউ ক্লিক করলে কি পরিমান আর্নিং হয় সেটা।

তাহলে বাংলা সাইটগুলো আমাদের কি পরিমান আর্নিং দেয়?


আমরা যারা বাংলায় ব্লগিং করি তাদের কিন্তু এডগুলো বাংলায় দেওয়া হয়।আবার বাংলাদেশি কোম্পানিগুলো গুগলকে তেমন একটা কাজ দেয় না তারা বেশিরভাগ এড প্রোভাইট করে টেলিভিশন কোম্পানিগুলোকে।






ব্লগারদের দরকারি ৫ টিবাংলাদেশি কোন কোম্পানি যদি গুগলের সাথে এড এর জন্য ডিল করলো। তারা তাদের কোম্পানির এড গুগলকে দিল এবং বলল ১০০০ জনকে দেখাতে বিনিময়ে তারা তাদের ৫$ ডলার দেওয়া হবে।



তো গুগল ঐ কাজটা নিয়ে আমাদেরকে প্রভাইট করে।বাংলাদেশি কোম্পানি গুলো আসলে গুগলে অতটা বিজ্ঞাপন দেয় না।তো যে কয়টা কোম্পানিই তাদের এড গুগলকে দেয় তারা খুব কম দামে দেয়।আর গুগলও সেটা নিয়ে নেয় কারন গুগলের কাজের দরকার।



আবার কিছুদিন পর যখন এগুলোর জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাবে সাথে তাদের বেলুও বৃদ্ধি পাবে।আজ থেকে ২ বছর দেখবেন বাংলা ব্লগেই প্রতি ১০০ ভিউ এ ৫/৬ $ ডলার আয় করা সম্ভব হবে।সেটার জন্য সময়ের দরকার।



আসলে এড এর টাকাটা নির্ভর করে ঐ কোম্পানির উপর যারা গুগলের সাথে ডিল করেছিল।তো এতক্ষণে বুঝতে পেরেছেন বাংলায় ব্লগিং করলে কি পরিমান আর্নিং হতে পারে।




৩. বাংলায় ব্লগিং এ এডসেন্স পেতে কোন সমস্যা হয় কি?


• গুগল এ্যাডসেন্স পাওয়ার জন্য যে ১০ টি কাজ করতে হবে।



বর্তমানে বাংলা ব্লগিং করলে বা বাংলা কনটেন্ট দিয়ে সাইট তৈরি কলে এডসেন্স পেতে কোন রকমের সমস্যায় পড়তে হয় না।আপনব যদি গুগলের সমস্ত নিয়ম মেনে কাজ করেন তাহলেই অবশ্যই পাবেন এটা নিরানব্বই ভাগ আমি নিশ্চিত।



অনেকসময় যারা এডসেন্স এপ্রুভ যারা করে তাদের মধ্যে কোন প্রকারের ভুল হয়ে থাকে। তাই আমি কিছু না করেই দ্বিতীয় বার এপ্লাই করে দিই।



বাংলা সাইটে এডসেন্স পেতে হলে কি করতে হবে?



প্রথমত আপনাকে একেবারে ইউনিক লিখতে হবে।এখান থেকে একটু ওখান থেকে একটু কফি করার কোন সুযোগ নেই।বর্তমানে গুগল অনেক উন্নত হয়ে গেছে।কোন প্রকারের কপি তারা মেনে নেবে না।



আপনাকে প্রথমত সাইট বেচে নিতে হবে।আপনি ব্লগার/ব্লগস্পট অথবা ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে শুরু করতে পারেন।এতে করে আপনার ব্লগিং করতে সুবিধা হবে এবং আপনি কোন রকমের কোডিং ছারা সাইট বিল্ড করতে পারবেন।




আপনাকে অবশ্যই ২০ টা ইউনিক আর্টিকেল লিখতে হবে।চেষ্টা করবেন ৫০০/৬০০ ওয়ার্ডের উপরে লিখতে এতে করে এডসেন্স পেতে সুবিধা হবে।

এবং আপনাকে অবশ্যই গুগলের সমস্ত গাইডলাইন ফলো করতে হবে।সমস্ত গাইডলাইন পিডিএফ এ পেতে এথানে ক্লিক করুন।




৪. কেন বাংলায় ব্লগিং করব?



যেহেতু বাংলা আমাদের মাতৃভাষা এবং খুব সহজে সকলে বুঝে তাই আমাদের বাংলায় ব্লগিং করা উচিত।ইন্টারনেটে প্রচুর বাংলা কনটেন্ট এর চাহিদা থাকলেও সেই অনুযায়ী কনটেন্ট এখনো তৌরি হয় নি।



অনেকে রয়েছে যারা ইংরেজি বুঝেন না ফলে তারা দ্বারস্থ হয় বাংলা কনটেন্ট এর উপর।আর এখানে এসে তারা কোয়ালিটি পায় না।এখানেই যত সমস্যা। আমাদেরকে অবশ্যই কোয়ালিটি সম্পূর্ণ কনটেন্ট পাবলিশ করতে হবে।



যাতে করে ভিজিটর দের সমস্ত প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যায়।আর বর্তমানে কোয়ালিটি কনটেন্ট এর গুরুত্ব অনেক।কারন গুগরের রোবট সবসময় কোয়ালিটি কনটেন্ট খুজে এবং তাদেরকে বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকে।



তাই আমাদের অবশ্যই বাংলাতে ভালো কোয়ালিটি সম্পূর্ণ কনটেন্ট পাবলিশ করতে হবে। আর আপনি যদি ভারো মানের কোয়ারিটি কনটেন্ট পাবলিশ করতে পারেন ধীরে ধীরে আপনার সাইপ গুগলে রেঙ্ক করাতে শুরু করবে এবং মনে প্রানে কাজ করলে বাংলায় ব্লগিং করে এক বছরের মাথায় সফল হওয়া যায়।



তাই আমার সকল ব্লগারেরই উচিত বাংলায় ব্লগিং করা।আর নতুন যারা রয়েছে তাদের জন্য তো অবশ্যই অবশ্যই।




৫. কিভাবে বাংলায় ব্লগিং করব?



ব্লগিং বর্তমানে সকল সাইট দিয়েই করা যায়।বাংলা ব্লগিং করা খুব সোজা। যেহেতু ভাষাটা আমাদের মাতৃভাষা।



• ব্লগিং শুরু করার আগে যে কথাগুলো জেনে নেওয়া দরকার



আপনাকে বেচে নিতে হবে আপনি কিভাবে সাইপ তৈরি করতে চান।সাইট তৈরি করার দুটি উপায় আছে। প্রথমটি হল কোডিং করে। দ্বিতীয়টি হল কোন সাইট ব্যবহার করে।

কোডিং সবাই জানে না এই কারনে সবাই কোনো না কোন কারনে অন্য কোন সাইটের উপর নির্ভর করে।


বর্তমানে এমন অনেক জনপ্রিয় সাইট রয়েছে যেগুলোর মধ্যে অন্যতম হল


ওয়ার্ডপ্রেস, ব্লগার (ব্লগস্পট), যায়রু, সাইট১২৩, উইক্স 



এগুলো ব্যবহার খুব সহজে সাইট তৈরি করা যা কোন রকমের কোডিং ছারা।আর বর্তমানে আমাদের দেশে সবচেয়ে জনপ্রিয় সাইটগুলো হল ওয়ার্ডপ্রেস এবং ব্লগার। এহুলো ব্যবহার অসাধারন সব সাইট তৈরি করা যায়।


আর এই সমস্ত সাইট দ্বারাই বাংলায় কাজ করা যায় খুব সহজে। তাই বাংলায় সাইট তৈরি করা নিয়ে কোন প্রকারের চিন্তা নেই 



৬. বাংলায় ব্লগিং কারা করে? 



বর্তমানে অনেক সফল ব্লগার রয়েছে বাংলাদেশে। বাংলায় ব্লগিং শুধু বাংলাদেশিরাই করেন না এছ্ড়াও ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, আসাম,ত্রিপুরা সহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে থাকা বাংলা ভাষাভাষী প্রবাসিরাও করে থাকেন।



বাংলা ব্লগিং আসলে কারে জন্যই বন্ধ নেই। সকলের জন্যই উন্মুক্ত এটি।বাংলায় ব্লগিং যারাই করে তাদের অবশ্যই সবকিছু যেনে বুঝেই করছেন। 

বর্তমানে বাংলা ভাষায় অনেক অনেক সাইট রয়েছে যেগুলো এ দরনের ব্লগারদের দ্বারা তৈরি।

আপনিও এদের মতো হতে চাইলে আজকে বাংলায় ব্লগিং শুরু করুন।




৭. বাংলায় কি ফ্রি ব্লগিং করা যায়?



হ্যাঁ যায়। (ব্লগার ব্যবহার করতে হবে)

ফ্রি ব্লগিং বলতে কিছুই নেয়।আপনি যদি ব্লগিং হরতে আগ্রহি হয়ে থাকেন আপনাকে অবশ্যই কিছু টাকা খরছ করতে হবে।আপনাকে কিছু টাকা খরছ করে ডোমেইন ও হোস্টিং কিনে নিতে হবে।



কত খরছ হবে সেটা নির্ভর করে আপনি কোন সাইট ব্যবহার করছেন। আপনি যদি ব্লগার ব্যবহার করে থাকেন আপনাকে একটা ডোমেইন কিনে নিলেই হয়ে যায়।এখানে কোন হোস্টিং এর প্রয়োজন হয় না।


• ব্লগার বনাম ওয়ার্ডপ্রেস কোনটি সেরা আপনার জন্য?



ব্লগারে ফ্রিও ব্লগিং করা যায় তবে এটার সম্ভবনা খুব কম এবং অনেক সময় লাগে। আর এটার ডোমেইন হবে yourdomain.blogspot.com। আপনি যদি ব্লগিং এ সিরিয়াস হন আপনাকে একটা কাস্টম ডোমেইন কিনতেই হবে।



আর আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই হোস্টিং এবং ডোমেইন দুটোই কিনে নিতে হবে ব্লগিং শুরু করার জন্য।



• বাংলাদেশর সেরা হোস্টিং এবং ডোমেইন প্রোভাইডর 'কোড ফর হোস্ট' থেকে ডোমেইন হোস্টিং কিনুন ২০% ছাড়ে



বাংলায় ব্লগিং-এর ভবিষ্যতে কি হতে পারে তার একটা ধারনা আপনারা হয়তোবা নিতে পেরেছেন। কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেনা না।



Post a Comment

অপেক্ষাকৃত নতুন পুরনো