Check Now


ইমেজ অপটিমাইজেশন হল অন পেজ এসইও এর গুরুত্বপূর্ণ অংশ।এখন যে আপনি এটা এটা দেখছেন মনে হয় আপনার কাছে একটি ব্লগ সাইট আছে। 

 

আর ব্লগ সাইট থাকলে সেটিকে এসইও করাতে হবে।আর এসইও করার জন্য অন পেজ এসইও অনেক জরুরি।

 

• অন পেজ এসইও কি? কিভাবে অনপেজ এসইও করব?


• ব্যাকলিংক কি এবং কিভাবে শক্তিশালী ব্যাকলিংক তৈরি করা যায়?


 

বুঝতেই পারছেন ইমেজ অপটিমাইজ করা কতটা জরুরি। আপনি আপনার ব্লগে ব্যবহার করা ইমেজটি থেকেই লক্ষ লক্ষ ভিজিটর নিয়ে আসতে পারেন। আর সেটির একমাত্র উপায় হল ইমেজ অপটিমাইজেশন। এটি ঠিক মতো করতে পারলে আপনার সাইটে দারুণ উন্নতি দেখতে পারবেন।

 

 ইমেজ অপটিমাইজেশন কি ? ইমেজ অপটিমাইজেশন করার ১০ টি টিপস

 

ইমেজ অপটিমাইজেশন কি?

 

ইমেজ অপটিমাইজেশন
ইমেজ অপটিমাইজেশন


আপনার ব্লগের ব্যবহৃত কোন একটি আর্টিকেলে থাকা ইমেজ বা ছবি সার্চ ইঞ্জিনে রেঙ্ক করানোকেই ইমেজ অপটিমাইজেশন বলে।এটি ব্লগ অপটিমাইজেশন এর মতই।



আজকে আপনাদের সাথে ইমেজ অপটিমাইজেশন করার ১০ টি গুরুত্বপূর্ণ উপায় শেয়ার করব যেগুলো করার ফলে আপনার ব্লগে উন্নতি দেখতে পারবেন।তাই আর দেরি না করে জনে নেওয়া যাক কোন উপায়গুলো ব্যবহার করা উচিৎ।

 

ইমেজ অপটিমাইজেশন করার ১০ টি টিপস



১. ইউনিক ইমেজ আপলোড করুন


 

পৃথিবীতে ইউনিক যতো জিনিস আছে সবকিছুরই মূল্য রয়েছে তাই ইউনিক কোন কিছুর গুরুত্ব বেশি থাকবেই। আপনি কোন প্রকারের কপি ছাড়া যদি ইমেজ আপলোড করে থাকে ন তাহলে ভালো রকমের এডভান্টেজ পাওয়া যাবে সার্চ ইঞ্জিন থেকে।



আপনাকে অবশ্যই নিজের তৈরি ইমেজ ব্যবহার করা উচিৎ। সেটি করার জন্য আপনাকে হয়ত কোন টুল সাইট বা গ্রাফিক্স ডিজাইন এর অ্যাপস বা সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারেন। যেমন -



• Canva
• Adobe photoshop

 
আবার চাইলে আপনি থার্ট পার্টি কোন ফ্রী ইমেজ ডাওনলোড সাইট থেকে ইমেজ ব্যবহার করতে চান। ইন্টারনেটে এই ধরনের ফ্রী ইমেজ ডাওনলোড সাইট প্রচুর পাওয়া যাবে। তাদের মধ্যে অন্যতম কিছু নিম্নে দেওয়া হল -

• Pixels

• Pixbay

এইসমস্ত সাইট ব্যবহার করে কপিরাইট ফ্রী ছবি তৈরি করে আপনার ব্লগে ছাড়তে পারেন। এতে করে আপনার একটা ইউনিক ছবি তৈরি হয়ে যাবে।



নোট - মনে রাখবেন কখনোই গুগল বা অন্য কোন সাইট থেকে ছবি এনে আনার সাইটে বসিয়ে দিবেন না এতে করে আপনার সাইট গুগলের কাছ থেকে পেনাল্টি খেতে পাবেন।



২. ক্রিয়েটিভ alt ট্যাগ ব্যবহার করা

 

এটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি জিনিস। আপনি যখন কোন ছবি আপলো করে দিবেন তখন কিন্তু কাজ শেষ নয়। আপনাকে অবশ্যই সেখানে অল্ট ট্যাগ ব্যবহার করা উচিৎ।

 

অল্ট ট্যাগ কাকে বলে?

 

অল্ট ট্যাগ ইমেজের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। আর অল্ট ট্যাগ হলো এমন একটা কিওয়ার্ড যেটি দ্বারা কোন একটি জিনিস কে বুঝায়।



আর এই অল্টার ট্যাগ আমাদের কে সবসময় কিওয়ার্ডের উপর ইউনিক করে দেওয়া উচিৎ। আপনারযদি ইমেজ অপটিমাইজেশন করতেই হয় তবে আপনাকে অবশ্যই অল্টার ট্যাগ ব্যবহার করা উচিৎ।

 

৩. ফাইল নেম বা ইমেজ নেম সিলেক্ট করা



এটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি ব্যাপার। আপনি যখনই কোন ছবি তৈরি করেন বা কোন সাইট থেকে নেন তখন সেটির একটি একটি এলোমেলো নাম থাকে। অবশ্যই এই নাম টিকে পরিবর্তন করতে হবে। এটি যথা সম্ভব আপনার কিওয়ার্ডের সাথে মিল রেখে করক উচিৎ।

 

ইমেজ নেম যেকম হওয়া উচিৎ : my-file-name



আপনাকে আপনার ইমেজটি বাছাই করে নিতে হবে এবং সেটির রিনেমে গিয়ে কিওয়ার্ড অনুযায়ী কিছু দেওয়া ভালো হবে। আবার যদি মাল্টিপল কোন ইমেজ থাকে তখন সেটিকেও ইমেজ অনুযায়ী পরিবর্তন করতে হবে।



৪. সাপোর্ট করা ফরমেটের ইমেজ ব্যবহার করা

 

এটি অনেক প্রয়োজনীয় হয়ে উঠতে পারে যখন আপনি ইমেজ অপটিমাইজেশন ও অন পেজ এসইও করেন। ব্লগ ফ্রেন্ডলি বা সাপোর্টেট করা ইমেজ ব্যবহার করা তাই খুব প্রয়োজন। গুগল ও বিভিন্ন ব্লগ সাইটগুলোর দারা কিছু ইমেজ ফরমেট এর কথা বলা হয়োছে। সেগুলো হল -

• JPG
• JPEG
• GIP
• PNG


এই ফরমেট এর ছবি হলে আপনি ব্লগে ব্যবহার করতে পারেন। যদি আপনার ছবি অন্য কোন ফরমেট ব্যবহার করেন তাহলে সেটি কার্যকর হবে না। যদি আপনাকে অন্য কোন ফরমেট এর ছবি ব্যবহার করতে হয় তবে আপনি সেগুলোকে উপরের ফরমেটগুলোতে পরিবর্তন করে পেলতে পারেন। এটি করার জন্য ইন্টারনেট প্রচুর টুল পেয়ে যাবেন। যেমন -



৫. ইমেজ কম্প্রেস করা



এটি সবচেয়ে দরকারি উপায় ইমেজ অপটিমাইজেশন এর ক্ষেত্রে। শুধু তাই নয় এটির মাধ্যমে আপনার সাইটের মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। আপনার সাইট স্লো হয়ে যাবে এবং বাউন্স রেট বাড়তে থাকবে।



• বাউন্স রেট কি? কিভাবে bounce rate কম করবেন



ইমেজ কম্প্রেস করা এসইও জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। অনেক ভারী ভারী ইমেজ সাইটে আপলোড করা ফলে সাইট লোড বৃদ্ধি পায়ে যকওয়ার ফলে আপনার সাইটের ভিজিটর কমে যাবে।



কিভাবে ইমোজ কম্প্রেস করব?



ইমেজ কম্প্রেস করার দুইটি উপায় আছে। এগুলো ব্যবহার করে খুব দ্রুত করা যায়।



(i) আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রোস ব্যবহারকারি হন তবে খুব সহজে একটি প্লাগইর ব্যবহার করে সমস্ত ইমেজকে কম্প্রেস করে সাইজ কমাতে পারেন। সেরকম কিছু প্লাগইন হল -



imagify image optimizer

Optomole

Wp Smush

TinyPng

Image Recycle



(ii) আপনি যদি একটা একটা করে কম্প্রেস করতে চান অথবা ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহারকারি না হন তবে কিছু সাইট ব্যবহার করে ইমেজ কম্প্রেস করতে হবে। সেই রকম কিছু -




৬. ইমেজ লোড হওয়া বন্ধ করা



যখনই ব্লগে কেউ ভিজিট করে আর ইমেজ লোড হতে থাকবে তখনই ভিজিটরের উপর একটা নেগেটিভ ইমপেক্ট পরবে। ইমেজ লোড করা বন্ধ করার জন্য প্রয়োজন ইমেজ কম্প্রেস সহ উপরের দেওয়া পাছটি রুল ফলো করা।



৭. ইমেজ হাইড এবং ওয়েট ঠিক রাখা

 

আপনি যখনই ব্লগে ইমেজ আপলোড করতে যান এই বিষয়টা খেয়াল করেন না। এইটা অনেকে করে থাকে। এটি করাও অনেক জরুরি। আমাদের অবশ্যই ১০০০ পিক্সেল এর উপরে ছবি ব্যবহার করা উচিৎ না। এটি কখনোই সকল ডিভাইস প্রেন্ডলি হবে। তাই যাতে সকল ডিভাইস প্রেন্ডলি করতে হয় আপনাকে অবশ্যই ৭০০×৬৫০ পিক্সেল এর হওয়া উচিৎ, এতে করে ইমেজ অপটিমাইজেশন করা আরেকটু সোজা হয়ে যাবে।



৮. সাইটম্যাপে ইমেজ ব্যবহার

 

বেশিরভাগ লোকেরাই এইসব বিষয়ে খেয়াল করে না। তবে আপনার সাইটের যে সাইটম্যাপ আছে দেখে নিবেন সেখানে আপনার ব্লগে ব্যবহার করা ইমেজগুলো আছে কি না।



কিভাবে সাইটম্যাপ দেখব?

 

সািপ ম্যাপ দেখার আপনাকে কোন একটা ব্রাউজারে এসে আপনার সাইটের লিঙ্ক দিতে হবে এবং শেষে sitemap.xml দিলেই হযে যাবে। যেমন - https://yoursitename.com/sitemap.xml



৯. হাইপারলিঙ্ক রিমুভ করা



আপনাকে অবশ্যই আপনার সাইটে থাকা ইমেজের হাইপারলিঙ্ক কেটে দিতে হবে। আপনি চাইলে সেটিকে সেটিং গিয়ে turn off করে দিতে আবার চাইলে আপলোডের সময় unlink করে দিতে, এটিও ইমেজ অপটিমাইজেশন এর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ।

 

১০. সব ধরনের ডিভাইস ফ্রেন্ডলি ইমেজ ব্যবহার করা



আপনাকে অবশ্যই এমন ছবি নিতে হবে যেখানো সব ধরনের ডিভাইসে ভালো ভাবে দেখা যায়। বিশেষ করে মোবাইল ফ্রেন্ডলি, কারন বেশিরভাগ ব্রাউজারই মোবাই থেকেই আসে তাই যদি মোবাইল ফ্রেন্ডলি না হয় আপনার এসইওতেও সমস্যা হতে পারে।



এই সমস্ত উপায়ে আপনি ইমেজ অপটিমাইজেশন করতে পারেন। এগুলো যদি ঠিকমত করে ইমেজ আপলোড করতে পারেন ব্লগে তবে আপনার ইমেজ সার্চ ইন্জিনে রেঙ্ক হবে এবং বিপুল সংখ্যক ট্রাপিক আপনার সাইটে নিয়ে আসতে পারেন।

1 মন্তব্য

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

অপেক্ষাকৃত নতুন পুরনো