অতিরিক্ত গরমের হাত থেকে বাঁচার উপায়

অতিরিক্ত গরমের হাত থেকে বাঁচার উপায়

Price:

Read more »

অতিরিক্ত গরমের হাত থেকে বাঁচার উপায়


 তীব্র গরম থেকে বাঁচার উপায় হল আমাদের প্রাত্যাহিক জীবন থেকে কিছুটা পরিবর্তন করে নিজের শরীরকে ঠাণ্ডা করে নেওয়া।

আমরা জানি শীতকালে শীত আর গরম কালে গরম এই দুটি  হবেই। সময় এখন গ্রীষ্মকাল  তাই আমাদের সকলেরই দিন যাচ্ছে ঘাম আর পানির সংস্পর্শে। অতিরিক্ত গরম পড়ার কারণে চারদিকে জীবাণু বা ফাংগাল-এর আক্রমণে বেড়ে গেছে।


অনেকেই গরমে আরাম পেতে দিনে দুই-তিনবার গোসল করে থাকে। শারীরিক পরিচ্ছন্ন থাকতে এটি কার্যকর হলেও গরমে আরাম পেতে আরো বেশকিছু টিপস যেগুলো প্রদান করব এইখানে। সেগুলো ফলো করলে আপনি এই প্রচন্ড গরম থেকে মুক্তি পাবেন।


মস্তিষ্ক ভালো রাখার ৫টি উপায় 


যেহেতু  বাইরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেয়েছে সেহেতু আমাদের শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু  আমাদের শরীরের এই তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে আনা যায় কিছু পদক্ষেপ নেওয়ার ফলে। এই আমাদের শরীরের তাপমাত্রা কারণেই কিন্তু আমাদের শরীরে অতিরিক্ত ঘাম হয়ে থাকে। আর বাতাসের আদ্রতা কম হওয়ার কারণে এই  ঘাম শুকাতে অনেক বেশি সময় লাগে। তাই সহজে বিভিন্ন ছোট খাটো অসুস্থ হয়ে যেতে পারেন।যেমন- সর্দি,কাশি,জ্বর,মাথা-ব্যাথা সহ ইত্যাদি।


এই প্রচণ্ড গরমে আমাদের আরো যে সকল সমস্যা হতে পারে সেগুলো হলো অতিরিক্ত ঘাম হওয়া, মাথা ঘুরানো, বমি বমি ভাব, মুখের ব্রণ সহ নানান সমস্যায় পড়তে পারেন। আর এই সকল সমস্যা এড়ানোর উপায় আছে আমাদের সাধ্যের মধ্যে। যদি আমরা একটু চেষ্টা  করি তাহলে খুব সহজে আমরা এগুলোর হাত থেকে মুক্তি পেতে পারি।


 গৃষ্ম কাল-এর তীব্র গরমের হাত থেকে বাঁচার কিছু টিপস নিম্নে দেওয়া হলঃ


১। যেহেতু আমাদেরকে কাজের জন্য ঘরের বাইরে বা ঘরের ভিতরে থাকতে হবে। তাই শুধুমাত্র দরকারে প্রয়োজন হলেই ঘরের বাইরে যাব, অন্যথায় অযথা ঘরের বাইরে বের হওয়ার প্রয়োজন নেই এই তীব্র গরমে। বিশেষ করে সকাল ১১ টা থেকে বিকেল ৩ঃ৩০ পর্যন্ত।অবশ্য আপনি যখন দরকারের বাড়ি থেকে বের হবেন তখন ছাতা ব্যবহার করতে পারেন।


২। আপনার বিভিন্ন ক্ষতিকারক  অভ্যাস গুলো দূর করুন। এইসকল ক্ষতিকারক  অভ্যাসগুলোর মধ্যে রয়েছে মদ্যপান, ধূমপান, জর্দা ইত্যাদি মাদকদ্রব্য। এগুলো শুধুমাত্র আপনার শরীরকে খারাপই করো না, এগুলো আপনার শরীরের তাপমাত্রা  বৃদ্ধি করে দিক কয়েকগুন।


৩। বেশি বেশি পরিমাণে পানি পান করুন। কারণ এই তীব্র গরমে আপনার শরীর থেকে প্রচুর পরিমাণে পানি বের হয়ে যায়। ফলে আপনার নতুন করে পানি পা।।করার প্রয়োজন  হয়। আপনি পানির বদলে বিভিন্ন প্রকার জুস, শরবত খেতে পারেন। তবে মনে রাখবেন রাস্তার পাশে বা আবর্জনা যুক্ত পানি বা শরবত খাবেন না। এগুলো সবসময় এড়িয়ে চলবেন।আবার বেশি বেশি চা কফি অ্যালকোহল না খাওয়া ভালো।


৪। গরমকালে বাইরে গেলে আপনি নিজের পোশাকের দিকে একটু খেয়াল রাখবেন। তীব্র গরমে বাইরে জিন্স পড়ে বের হওয়ার প্রয়োজন নেই। পারলে আপনি সুতির কোন কাপড় পরিধান করতে পারেন। এছাড়াও আপনি কোন রঙিন যেমন- অতিরিক্ত কাল বা লাল এই ধরনের কাপড় ব্যবহার না করাই ভালো। এগুলো অতিরিক্ত তাপ শোষণ করে, ফলে  আপনার শরীর গরম হয়ে যাবে। এই কারণে পাতলা সুতির কাপড় পরিধান করায় ভালো।


৫। গরমে আপনাকে খুব ভালো করে গোসল করে নিতে হবে। এক্ষেত্রে সাবান ব্যবহার করার সময় ভালো মানের কোন সাবান ব্যবহার করা প্রয়োজন। আর গরমের সময় গোসল না করে থাকা যাবে না। আবার আপনি চাইলে দিনে কয়েকবার হাত ও পায়ে পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে নিতে পারেন। আবার একটি রুমাল নিজের সঙ্গে রাখতে পারেন। যেটি দিয়ে কিছুক্ষণ পরপর আপনার মুখ গুলো মুছে দিতে পারেন।


৬।  তীব্র গরম থেকে বাঁচতে হলে আপনাকে চর্বি জাতীয় খাদ্য কম খেতে হবে যেমন-মাংস। এর বদলে আপনি প্রচুর পরিমাণে ফল অথবা সবজি খেতে পারেন। এগুলো আপনার শরীরকে ঠাণ্ডা রাখতে সহযোগিতা করবে। তেল-মসলা মাছ-মাংস এগুলো থেকে যতটুকু পারো ততটুকুই দূরে থাকুন।


৭। যদি বাইরে বের হন তাহলে ছাতা,ক্যাপ,রুমাল অথবা পানির বোতল নিয়ে বাসা থেকে বের হতে পারেন। এর ফলে আপনি বাইরের যতই তীব্র গরম থাকুক না কেন আপনি গরমের বিরুদ্ধে ফাইট করার জন্য রেডি থাকবেন।


৮।  গরমকালে আপনি আপনার প্রস্রাব এর দিকে একটু খেয়াল রাখবেন। আপনি প্রস্রাব করার সময় যখন দেখবেন আপনার প্রস্রাবের রঙ গাঢ় তখন বুঝতে পারবেন আপনার পানিস্বল্পতার লক্ষণ রয়েছে। তখন আপনি পানি পান করবেন আগেই বলা হয়েছে গরমকালে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করবেন। এর ফলে আপনার শরীর অন্যান্য সময়ের তুলনায় তুলনামূলক ঠান্ডা থাকবে।


৯।  বাইরে থেকে এসে আপনার ঘামযুক্ত শরীর নিয়ে গোসল করতে যাবেন না। আগে একটু ফ্যান বা বাতাসে গিয়ে ঠান্ডা হয়ে নিন এরপর কিছুক্ষন পর গোসল করু। বাইরের রোদ থেকে এসে হালকা ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ভালো করে ধুয়ে ফেলতে পারেন।


১০।  বাইরে থেকে এসেই আপনি ফ্রিজের ঠান্ডা পানি খাবেন না। আপনি হয়তো আপনার পিপাসা মেটাতে পানি খেয়েছেন কিন্তু এই পানি পান করার ফলে, আপনার শরীরে পানির চাহিদা আরো বৃদ্ধি করে ফেলতেছে। তাই একটু ধীরেসুস্থে পানি পান করুন। আর অবশ্যই  বাইরের কোন কোমল পানীয় একদমই খাবেন না। এগুলো মারাত্মক ক্ষতিকর এই গরমে।


কিভাবে স্মার্ট হতে হয়? স্মার্ট হওয়ার সহজ ও কার্যকর উপায়

 

 গরমে সবচেয়ে বেশি যে  সমস্যাটি হয় সেটি হল হিটস্ট্রোক হওয়া। প্রত্যেক বছরে গরমকালে অনেক বেশি হিট স্ট্রোকের রোগী দেখা যায়। আপনি কিভাবে বুঝবেন যে আপনার হিট স্ট্রোক হয়েছে? হিট-স্ট্রোক হওয়ার অনেকগুলো লক্ষণ রয়েছে। যেমন- প্রস্রাব বন্ধ হয়ে যাওয়া, তীব্র মাথাব্যথা ও শুষ্ক হয়ে যাওয়া,‌ হৃদস্পন্দন বেড়ে  যাওয়া,‌ বমি  হওয়া, মাথা ঘোরা ইত্যাদি।


এখানে চেষ্টা করা হয়েছে কিভাবে অল্প কথায় আপনাদেরকে গরমের হাত থেকে মুক্তির উপায় গুলো দেওয়া যায়। গরমে যদি আপনি একটু সতর্ক হয়ে চলাচল করতে পারেন তাহলে আপনি এর থেকে সহজে থেকে মুক্তি পাবেন আশা করি।


আপনি যদি তীব্র গরম থেকে বাঁচতে উপরোক্ত  টিপসগুলো ফলো করে থাকেন, তাহলে আশা করতে পারতেছি আপনি অতিরিক্ত গরম থেকে নিজেকে বাঁচাতে পারবেন। 


0 Reviews

যোগাযোগ ফর্ম

নাম

ইমেল *

বার্তা *